রবিবার , অক্টোবর 1 2017
ট্রাজেডির নায়ক মেসি

ট্রাজেডির নায়ক মেসি।

সমাপ্তি হল কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরের। আবারো টাইব্রেকারে দুঃখ জনক হারের পুনরাবিত্তি ঘটলো আর্জেন্টিনা শিবিরে। ইতিহাস বদলাতে গিয়ে নিজেই ইতিহাস বনে গেলেন। জিতা হলনা তার, দেশের হয়ে বড় কোন আসরের টফি।

লাখো কোটি সমর্থক তাকিয়ে ছিল কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরের শেষ ম্যাচের দিকে। তাদের কাঁদিয়ে বিদায়ী ঘণ্টা বাজিয়ে দিলেন মেসি। নিজের প্রথম শটে টাইব্রেকারে গোল করতে না পারায় ম্যাচ শেষে অবসর নেবার ঘোষণা দিলেন তিনি।

গত কাল বাংলাদেশ সময় সকাল ৬ টায় যুক্তরাষ্ট্রের মেটলাইফ স্টেডিয়ামের শিরোপা নির্ধারণি ম্যাচে নির্ধারিত এবং অতিরিক্ত সময় গোলশূন্য থাকার পর টাইব্রেকারে দ্বিতীয় বারের মত হেরে যায় আর্জেন্টিনা।

২০১৪ সালের বিশ্বকাপ, ২০১৫ সালের কোপা আমেরিকা এবং ২০১৬ সালের কোপা আমেরিকার শতবর্ষী আসরের শিরোপা না জিতে ভেঙে পরেছেন বর্তমান প্রজন্মের ফুটবল কিংবদন্তী ৫ বারের বর্ষসেরা আর্জেন্টাইন খেলোয়াড় এবং বার্সেলোনার তারকা ফরোয়ার্ড লিওনেল মেসি।

তার এই ভেঙে পরা সম্পর্কে স্পেনের ক্রীড়া দৈনিক মার্কাকে চিলির অধিনায়ক, টুর্নামেন্টের গোল্ডেন গ্লাভ বিজয়ি এবং বার্সেলোনার সতীর্থ ব্রাভো বলেন,

“আমার মতে সে ইতিহাস তথা বিশ্বের সেরা খেলোয়াড়। আমারা তাকে খুব ভালো ভাবে চিনি, সে কি ধরনের মানুষ। আমার বিশ্বাস সে আর্জেন্টিনার হয়ে আরও অনেক বছর খেলবে। মেসি ৫ বারের বর্ষসেরা খেলোয়াড়। তার খেলা উপভোগ করা, তাকে মূল্যায়ন এবং তাকে সবার বুঝা উচিৎ। ফুটবল সম্পূর্ণ দলিও খেলা। জিতলে আমরা সবাই জিতি আর হারলে সবাই হারি”।

অপরদিকে আগুয়েরা বলেন,

“মেসি পেনাল্টি মিস করে অনেক ভেঙে পরেছে। আমি ম্যাচ শেষে ড্রেসিংরুমে এর চেয়ে বাজে অবস্থায় তাকে আর কখনো দেখিনি”।

ম্যাচ শেষে সংবাদ মাধ্যমকে মেসি বলেন,

“এটা অনেক কঠিন, সময়টা ব্যাখ্যার নয়। ড্রেসিং রুমে ভেবে দেখলাম, জাতীয় দলের হয়ে আমার খেলার সমাপ্তি হলো। আমি চ্যাম্পিয়ন হবার জন্য সাধ্য মত চেষ্টা করেছি। তা হয়নি। সিদ্ধান্তটা অনেক কঠিন। নেওয়া হয়েগেছে। ফেরা আর হবেনা”।

“আমি চেষ্টা করেছি। চেষ্টার কোন কমতি রাখিনি। আবারো ফাইনালে হেরে গেলাম। সত্যি এটা অনেক কষ্টের। আমরা কেও ফাইনালে হেরে সন্তুষ্ট নই। তা ছাড়া গুরুত্বপূর্ণ সময়ে পেনাল্টি মিস করেছি”।

চলতি আসরে দুর্দান্ত খেলেছেন মেসি। তার পরেও শিরোপা জিতা হলনা তার। তাই ২৯ বছর বয়সেই আন্তর্জাতিক ফুটবল থেকে বিদায়ের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। অথচ এই বয়সেই, অনেক সম্ভব-অসম্ভব অর্জন নিজের করে নিয়েছেন। আর এই অর্জন যেকোনো ফুটবলারের কাছে ঈর্ষণীয় হয়ে থাকবে চিরদিন।

ঠিক তেমনি হয়তোবা মেসিকে দেখা জাবেনা আর্জেন্টিনার হয়ে আকাশি রঙের জার্সিতে। তাই লাখো কোটি সমর্থক দেখবেনা আর্জেন্টিনার হয়ে মেসির শৈল্পিক নৈপূর্ণের বাম পায়ের যাদুর খেলা।

ফুটবল আনুরাগিদের প্রত্যাশা, মেসি আবার ফিরে আসবে আন্তর্জাতিক ফুটবলে। আবারো দেখা জাবে তাকে চির চেনা আকাশি রঙের জার্সিতে। কারন সামনেই তার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় করছে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য ২০১৮ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ।

Check Also

ফাইনালে বাংলাদেশ

ম্যানচেস্টার সিটিকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

মালায়শিয়ার রাজধানী কুয়ালা লামপুরে অনূর্ধ্ব-১৪ মক কাপে প্লেট পর্বের সেমি-ফাইনালে ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

seven + 2 =