বৃহস্পতিবার , মার্চ 30 2017
পগবা

লোভনীয় দামে নিজের চেনা জায়গায় উচ্ছ্বসিত পগবা

প্রতি বছর ইউনাইটেড প্রতিভা অন্বেষণের মাধ্যমে ভালো খেলোয়াড় বাছাই করে থাকে। আর এই কাজটি করে থাকে ইউনাইটেডর যুব একাডেমী। তারাই খুজে বের করেছিল পর্তুগালের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে এবং পগবাকে।

খেলার সুযোগ না পেয়ে পগবা ছিলেন অনিয়মিত। ২০১১ সালে খেলোয়াড় সংকটে ১৮ বছর বয়সী মিডফিল্ডার পগবার উপর আস্থা হারিয়ে ফেলেছিল ইউনাইটেড। যুব এফএ কাপ জয়ের নায়ক পগবার উপর ফার্গুসনও আস্থা হারিয়ে ফেললে, পগবা দল পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেয়।

এর আগে ব্ল্যাকবার্নের  বিপক্ষে ৩-২ গোলে হেরে যায় ইউনাইটেড। এই ম্যাচে পগবা তেমন কোন অবদান রাখতে না পারলেও, তার চেয়েও বড় ক্ষতি হয়ে যায় ইউনাইটেডের। কারন গোপনে জুভেন্টাসের সাথে চুক্তি সেরে ফেলে পগবা। এদিকে চুক্তি শেষ হওয়ায় ইউনাইটেডেরও করার কিছু থাকেনা। এক প্রকার বিনে পয়াসায় জুভেন্টাস পগবাকে পেয়েযায়। ক্ষতি পুরন হিসেবে ইউনাইটেড পেয়েছিল মাত্র ১২ কোটি টাকা।

এর পর পগবা নিজেকে তিল তিল করে তৈরি করেন। তার তৈরি হতে সময় লাগে ৪ বছর। এই চার বছরে তিনি অনেক ক্ষেতি নিজের করে নিয়েছেন। দলকে এনে দিয়েছেন ৪ টি লিগ শিরোপা এবং দলকে তুলে ছিলেন চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে।

যে পগবার উপর ইউনাইটেড আস্থা হারিয়ে ফেলেছিল। সেই পগবাকেই আবারো জুভেন্টাসের কাছ থেকে কিনে নিল ইউনাইটেড। যেখানে বিনে পয়সায় পেয়েছিলো জুভেন্টাস। সেই জুভেন্টাসেই পগবাকে বিক্রি করলো লোভনীয় দামে। যার পরিমাণ বাংলাদেশী মুদ্রায় ৯০১৩ কোটি টাকা। সময়ের ব্যবধানে জুভেন্টাসের লাভ হল ৯০১ কোটি টাকা।

৫ বছরের চুক্তির পর নিজের চেনা জায়গায় ফিরে উচ্ছ্বসিত পগবা। তিনি ইউনাইটেডকে নিয়ে নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন। তার ভাষায়,

“আমার এখনও অর্জনের অনেক কিছু বাকি আছে। এর জন্য সঠিক ক্লাব হল ইউনাইটেড”।

Check Also

চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ

রোনালদোর ভেলায় চড়ে ক্লাব বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদ

খেলার শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলেছে অনভিজ্ঞ ক্লাব কাশিমা অ্যান্টলার্স। তবে শেষ পর্যন্ত অভিজ্ঞতার কাছে পরাজয় …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

two + twelve =