মাশরাফি

আমি খুব ভাগ্যবান যে শচীন টেন্ডুলকারের সময় ক্রিকেট খেলেছি

ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে থেকে অবসর নিলেন ক্রিকেটের বরপুত্র শচীন টেন্ডুলকার । তার শেষ ওয়ানডে ম্যাচটা খেলেছেন বাংলাদেশে এবং তার শেষ শতকটি ছিল বাংলাদেশের বিপক্ষে । আর সেই খেলায় তাকে আউট করে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন মাশরাফি বিন মুর্তজা । মাশরাফি আরও জানান টেন্ডুলকারের সময়ে ক্রিকেট খেলায় আমি গর্বিত বোধ করি ।

প্রশ্নঃ ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন শচীন টেন্ডুলকার। কতটা মিস করবেন তাঁকে?

মাশরাফিঃ আমি নিজেকে খুব ভাগ্যবান ভাবি যে শচীন টেন্ডুলকারের সময় ক্রিকেট খেলেছি খেলতে পেরেছি । তাকে আমি সবসময় মিস করব । সত্যি বলতে কি এমন ক্রিকেটার আমরা আর পাবনা । আর কার পক্ষে টেন্ডুলকার হওয়াও সম্ভবনা ।

প্রশ্নঃ কেন টেন্ডুলকার হওয়া সম্ভব নয়?

মাশরাফিঃ এখন সবাই টি-টোয়েন্টির প্রতি ঝুঁকে পড়ছে । টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভালো খেললেই জনপ্রিয় হওয়া যায়, টাকা কামানো যায়। টেন্ডুলকারের মতো ক্রিকেটের আরাধনা করে এমন খেলোয়াড় খুঁজে পাওয়া বিরল ।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে শততম সেঞ্চুরিটি করেছিলেন টেন্ডুলকার। আর সেই খেলায় তাঁর উইকেট পেয়েছিলেন আপনি…..

মাশরাফিঃ সারা জীবন মনে রাখার মত বিষয় ওটি । তবে ওটাই যদি ওর শেষ খেলা হত তবে আরও ভাল হত । তবে সবাইকে বলতে পারতাম ওয়ানডেতে ওকে শেষবারের মত আউট করেছিলাম আমি ।

প্রশ্নঃ একজন বোলার হিসেবে টেন্ডুলকারকে বল করার সময় কি অনুভূতি হতো?

মাশরাফি: খুব যে ভয় পেতাম তা নয়। তবে সব সময় চেষ্টা করতাম ওর উইকেটটা নেয়ার জন্য। তাকে আউট করার আনন্দটাই অন্য রকম । একজন বোলারের খাতায় ওর উইকেট থাকা মানে বিশাল ব্যাপার।

প্রশ্নঃ কোনো দুর্বলতা কি খুঁজে পেয়েছেন তাঁর ব্যাটিংয়ে?

মাশরাফি: শেষ দিকে মনে হয়েছে অফ স্টাম্পের বাইরে পড়ে স্টাম্পের দিকে আসা বলগুলোতে ও অস্বস্তি বোধ করে। তবে যেসব বল পায়ের দিকে আসত, সেসব বলে সে আনায়াসে রান করত।

প্রশ্নঃ বিশেষ কোনো স্মৃতি আছে তাঁর সঙ্গে?

মাশরাফি: সরাসরি তার সঙ্গে নেই। তবে যুবরাজ সিংয়ের কাছে আমার সম্পর্কে তার একটা মূল্যায়ন শুনেছিলাম ২০০৭ বিশ্বকাপের সময়। বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামার  আগে ভারতীয় দলের সবাই যখন রফিক ভাইকে নিয়ে পরিকল্পনায় ব্যস্ত ছিল। তখন নাকি টেন্ডুলকার বলেছিল, ‘মাশরাফির ওপরও চোখ রাখতে হবে। তাকে সহজভাবে নিয়ো না।’

প্রশ্নঃ ওয়ানডেতে আরও কিছুদিন কি খেলতে পারতেন টেন্ডুলকার?

মাশরাফি: আমার মনে হয়, ও সঠিক সময়েই সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ওয়ানডে ছাড়ার সময় হয়ে গিয়েছিল ওর। তবে আমি খুব খুশি হতাম যদি সে মাঠ থেকে অবসর নিত। তাহলে তার শেষ খেলা আমরা অন্যভাবে উপভোগ করতাম ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

19 − seven =